হার্ট অ্যাটাকের ৬টি পূর্বলক্ষণ

পৃথিবীতে প্রতি বছর প্রায় ৬ লক্ষ্যেরও বেশি লোক হার্ট অ্যাটাক করে মারা যাচ্ছে। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়। গত ৩০-৪০ বছরের তুলনায় এদেশে হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যুর সংখ্যা ৫০% বৃদ্ধি পেয়েছে। অথচ একটু সতর্ক হলেই এর মধ্যে অর্ধেক মানুষের প্রাণ বাঁচানো সম্ভব।

হার্ট অ্যাটাক হওয়ার অন্তত এক মাস আগে শরীরে কিছু লক্ষণ দেখা দেয় যা আমরা অনেকেই জানি না। এগুলো দেখা দিলে সাথে সাথে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হলে অনেক রোগীকে বাঁচানো সম্ভব। চলুন তাহলে লক্ষণগুলো জেনে নেই-

বুকে চাপ অনুভূত হওয়া

হার্ট অ্যাটাক একদিন হঠাৎ করে হয়ে যায় না। এর আগে বুকে চাপ ও ব্যথা সৃষ্টি করে বার বার আপনাকে সতর্ক করার চেষ্টা করে। তাই ঘন ঘন বুকে প্রচণ্ড চাপ ও ব্যথা হতে থাকলে ডাক্তারের শরণাপন্ন হোন।

সর্দি-কাশি বা ফ্লু লেগে থাকা

হৃদরোগের সমস্যা বাড়তে থাকলে শরীরে সর্দি-কাশি লেগেই থাকে। কোনো ভাবেই এটা দূর করা সম্ভব হয় না।

নিঃশ্বাস নিতে সমস্যা

হার্ট অ্যাটাক হয়ে মারা গেছেন এমন রোগীর মৃত্যুর কয়েক দিন আগের কথা চিন্তা করলে দেখতে পারবেন যে তার নিঃশ্বাস নিতে সমস্যা হতো। হৃদরোগ থাকলে শরীরের শিরা ও ধমনীর ভেতরে প্লাক জমা হতে থাকে। যার ফলে ফুসফুসের কার্যক্ষমতাও ব্যাহত হয়।

শরীর দুর্বল

শরীর অত্যন্ত দুর্বল হয়ে পড়ে। মাংসপেশীতে শক্তিই থাকে না। এমনকি বিছানায় বসে থাকতেও কষ্ট হয়।

মাথা ঘুরানো এবং শরীর ভিজে যাওয়া

শরীরের রক্ত সঞ্চালনে সমস্যা হলে শরীর ভিজে যায় এবং মাথা ঘুরাতে থাকে। হৃদরোগের কারণে শিরা ও ধমনীর মধ্যে দিয়ে স্বাভাবিক ভাবে রক্ত সঞ্চালিত হতে পারে না। এরকম দেখা দিলে তাড়াতাড়ি চিকিৎসকের শরণাপন্ন হোন।

অবসাদ

যখন শরীরের ধমনীর মধ্য দিয়ে রক্ত স্বাভাবিক ভাবে চলাচল করতে পারেনা তখন আমাদের হৃৎপিণ্ড স্বাভাবিকের তুলনায় অনেক বেশি কাজ করে। যার ফলে শরীর সব সময় দুর্বল থাকে। এরকম অবসাদ দেখা দিলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হোন।

প্রিয় পাঠক,আমরা প্রতিটা রোগ সম্পর্কে আপনাকে তথ্য দেই, সচেতন করি। আমরা এই লেখায় আপনাকে চিকিৎসা প্রদান করি না। কারণ চিকিৎসার বিষয়টি সম্পূর্ণ আপনার রোগের অবস্থা অনুসারে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন আপনার চিকিৎসক। তাই এই লেখার মাধ্যমে আপনি আপনার রোগ সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে, সচেতন হয়ে চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করে চিকিৎসা গ্রহণ করবেন।

সারাদেশে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে বিশ্বস্ততার সাথে ঔষধ ডেলিভারী দেওয়া হয়।

ঔষধ পেতে যোগাযোগ করুন :

হাকীম মিজানুর রহমান (ডিইউএমএস)
হাজীগঞ্জ, চাঁদপুর।
ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার
একটি বিশ্বস্ত অনলাইন স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান।

মুঠোফোন : 01742-057854

(সকাল দশটা থেকে বিকেল ৫টা)

ইমো/হোয়াটস অ্যাপ : 01762-240650

ই-মেইল : ibnsinahealthcare@gmail.com

শ্বেতীরোগ একজিমাযৌনরোগ, পাইলস (ফিস্টুলা) ও ডায়াবেটিসের চিকিৎসক।

সারাদেশে কুরিয়ার সার্ভিসে ঔষধ পাঠানো হয়।

আরো পড়ুন : শ্বেতী রোগের কারণ, লক্ষ্মণ ও চিকিৎসা

আরও পড়ুন: বীর্যমনি ফল বা মিরছিদানার উপকারিতা

আরো পড়ুন : অর্শ গেজ পাইলস বা ফিস্টুলা রোগের চিকিৎসা

আরো পড়ুন :  নারী-পুরুষের যৌন দুর্বলতা এবং চিকিৎসা

আরো পড়ুন : ডায়াবেটিস প্রতিকারে শক্তিশালী ভেষজ ঔষধ

আরো পড়ুন : দীর্ঘস্থায়ী সহবাস করার উপায়