শীতের দিনেও যৌন জীবনে উষ্ণতা পেতে চান? কাজে দেবে এই উপায়গুলি

নিজের অস্তিত্ব ভালভাবেই জানান দিচ্ছে শীত। হিমশীতল বিছানায় গা এলিয়ে দেওয়া মাত্রই যেন উড়ে এসে জুড়ে বসছে আলস্য। এদিকে সামনে রতিসুখের হাতছানি। মনের উদ্দাম আকাঙ্খা সত্ত্বেও শরীর যেন কিছুতেই আর কম্বলের আরাম ছেড়ে বেরিয়ে আসতে চায় না।

শরীরকে পোষ মানাতে শিখুন। তাহলে শীতেও যৌন জীবন হয়ে উঠবে উপভোগ্য। এমন কিছু উপায় আছে যাতে শীতেও আপনার ও সঙ্গীর সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়বে উষ্ণতা। আর এই ‘একটু উষ্ণতার জন্য’ কী করতে হবে? না, তার জন্য নতুন করে বুদ্ধদেব গুহর উপন্যাস না পড়লেও চলবে। এর জন্য সহজ কিছু উপায় অবলম্বন করলেই হবে।

১) যৌনতার ক্ষেত্রে নারী শরীরের পদযুগলের ভূমিকা বেশ গুরুত্বপূর্ণ। আর শীতে পায়ের তলা সবার আগে ঠান্ডা হয়। তাই রাতে শোয়ার আগে আপনি আর সঙ্গী দু’জনেই মোজা পরে নেবেন। পায়ের উষ্ণতায় ঠান্ডা কম লাগবে। আর বাকি শরীরের দায়িত্ব আপনি কিংবা আপনার সঙ্গীর রতিক্রিয়ার কৌশলের উপর নির্ভর করছে।

২) যদি শরীরের মিলনের সময় মুখমেহনের সম্ভাবনা থাকে তাহলে তাঁর আগে গরম কফি কিংবা চা খেয়ে নেবেন। নিম্নাঙ্গের প্রান্তে যখন পৌঁছবেন কবোষ্ণ অনুভূতি আরামদায়ক হবে।

৩) যৌনমিলনের আগে সুগন্ধী চাও পান করতে পারেন। এতে আপনার শরীরে যেমন উষ্ণতা তৈরি হবে। তেমনই আপনার উষ্ণ ঠোঁটের আলতো ছোঁয়াতেই সঙ্গীর কামোত্তেজনা কয়েকগুন বাড়িয়ে দেবে।

৪) শীতকালে যদি কম্বলের আরাম ছেড়ে বের হতে না ইচ্ছে করে তাহলে সঙ্গীকেও তার আড়ালে ডেকে নিন। স্পুনিং পোজিশনের নাম শুনেছেন? ঠিক দু’টো চামচের মতো একে অন্যের শরীরের সঙ্গে লেপটে থাকা। এতে লেপ ছেড়ে বেরও হতে হবে না, আবার যৌনতাও উপভোগ করতে পারবেন।

৫) ইষদুষ্ণ তেলের মালিশ। এর একাধিক লাভ আছে। শরীরের শুষ্কভাব দূর হয়ে কোমলতা আসবে, এই সুযোগে ফোর প্লেও সেরে নিতে পারবেন আর সঙ্গীর শরীরে রতিসুখের তীব্র আগ্রহ জাগিয়ে তুলতে পারবেন।

শীতে পায়ের তলা সবার আগে ঠান্ডা হয়। তাই রাতে শোয়ার আগে আপনি আর সঙ্গী দু’জনেই মোজা পরে নেবেন। যদি শরীরের মিলনের সময় মুখমেহনের সম্ভাবনা থাকে তাহলে তাঁর আগে গরম কফি কিংবা চা খেয়ে নেবেন।

যৌন রোগ কয়েক প্রকার হতে পারে। তাই প্রথমেই আমাদেরকে বুঝতে হবে যৌন রোগ কী?

যৌন রোগ কয়েক প্রকার হতে পারে। যেমন :

১. সহবাসে অসমার্থতা।

২. দ্রুত বীর্যপাত।

৩. অসময়ে বীর্যপাত।

৪. সহবাসের আগেই বীর্যপাত। অর্থাৎ নারীদেহ কল্পনা করলেই বীর্যপাত হয়ে যাওয়া।

৫. প্রস্রাবের সাথে বীর্যপাত।

৬. প্রস্রাবের বেগ হলেই বীর্যপাত। স্বপ্নদোষ। মেহ রোগ।

৭. যৌনবাহিত রোগ। যেমন. গনোরিয়া, সিফিলিস, ক্লামিডিয়া, হার্পিস, ওয়ার্ট, ব্যাকটেরিয়াল ভ্যাজাইনোসিস ইত্যাদি। সাধারণত এসব যৌন রোগে আক্রান্ত পুরুষ শারীরিক সম্পর্কের সময় তার সঙ্গীর দেহে এসব রোগ সংক্রমিত করে। এ কারণে এগুলোকে যৌন সংক্রমিত রোগ বলা হয়। বহু সংখ্যক যুবক এই রোগে আক্রান্ত হতে পারে। তবে আমাদের দেশের মানুষ যৌন রোগে আক্রান্ত হলেও বিষয়টি লুকিয়ে রাখে। এসব রোগ লুকিয়ে রাখা ঠিক নয়। কারণ এতে রোগের প্রকোপ বাড়ে। প্রাথমিক অবস্থায় এসব রোগ চিকিৎসা করলে সুফল মেলে কিন্তু পরবর্তীতে শেষ অবস্থায় সুফল মেলে না।

ঠিক সময়ে চিকিৎসা না হলে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। সব সময় যে অুবাধ সঙ্গমের ফলেই এই ধরনের রোগ হয় তা নয়, কোনও একজন আক্রান্ত ব্যক্তির সঙ্গে বহুবার শারীরিক সম্পর্কের ফলেও এই রোগ হতে পারে। পুরুষ ও মহিলা উভয়েই সমানভাবে আক্রান্ত হতে পারেন এই সব রোগ থেকে।

ওপরে বর্ণিত ১ নম্বর থেকে ৬ নম্বর পর্যন্ত রোগের চিকিৎসা এক প্রকারের। আর তা হচ্ছে : নাইট কিং নিয়মিত সেবন করা। কয়েক মাস সেবন করলেই এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।

নাইট কিং খুব ভালো মানের ঔষধ। যা সেবন আপনি দ্রুত বীর্যপাত থেকে মুক্তি পাবেন।

আর সাত নম্বর রোগগুলো থেকে মুক্তি পেতে হলে দীর্ঘদিন যাবত ঔষধ সেবন করতে হবে।

সারাদেশে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে বিশ্বস্ততার সাথে ঔষধ ডেলিভারী দেওয়া হয়।

ঔষধ পেতে যোগাযোগ করুন :

হাকীম মিজানুর রহমান (ডিইউএমএস)

হাজীগঞ্জ, চাঁদপুর।
ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার
একটি বিশ্বস্ত অনলাইন স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান।

মুঠোফোন : (চিকিৎসক) 01742-057854

(সকাল দশটা থেকে বিকেল ৫টা)

ইমো/হোয়াটস অ্যাপ : (চিকিৎসক) 01762-240650

ই-মেইল : ibnsinahealthcare@gmail.com

সারাদেশে কুরিয়ার সার্ভিসে ঔষধ পাঠানো হয়।

শ্বেতীরোগ একজিমাযৌনরোগ, পাইলস (ফিস্টুলা) ও ডায়াবেটিসের চিকিৎসক।

আরো পড়ুন : শ্বেতী রোগের কারণ, লক্ষ্মণ ও চিকিৎসা

আরো পড়ুন : মেহ-প্রমেহ ও প্রস্রাবে ক্ষয় রোগের প্রতিকার

আরো পড়ুন : অর্শ গেজ পাইলস বা ফিস্টুলা রোগের চিকিৎসা

আরো পড়ুন : ডায়াবেটিস প্রতিকারে শক্তিশালী ভেষজ ঔষধ

আরো পড়ুন : যৌন রোগের শতভাগ কার্যকরী ঔষধ

আরো পড়ুন :  নারী-পুরুষের যৌন দুর্বলতা এবং চিকিৎসা

আরো পড়ুন : দীর্ঘস্থায়ী সহবাস করার উপায়

আরও পড়ুন: বীর্যমনি ফল বা মিরছিদানার উপকারিতা