আলকুশি ১৫টি উপকারিতা জানলে অবাক হবেন

আলকুশি আমাদের দেশের গ্রাম বা শহরে এটি কম বেশি সবারই পরিচিত একটি উদ্ভিদ। আলকুশি বীজের উপকারিতা অনেক গুণ বেশি। তবে এই আলকুশীকে গ্রামে বিচুটি বলেও ডাকা হয়ে থাকে। এই আলকুশি বাড়ির আশেপাশে বা জংগল দেখা যায়।

এছাড়াও গ্রামেও এখন এ গাছ দেখতে পাওয়া যায় । বিশেষ করে এই ফল যদি গায়ে লেগে যায় তাহলে চুলকানি ও সেখানে ফুলে যায় । আলকুশি গাছের লতা,পাতা ও ছোট লোমে আবৃত থাকে। এই আলকুশি পাতা দেখতে ট্রাইফোলিয়েট বা তিনপাতা বিশিষ্ট।

এই আলকুশি ফল বড় বা শটি প্রকৃতির কিছুটা বাকা ধূসরবর্ণের হয়। আলকুশি তে একটি ফলে ৫-৬ টি চেপ্টা পীতবর্ণের বীজ থাকে। তবে এই গাছের ফুল ও ফল প্রায় সারা বছরই পাওয়া যায়। আলকুশি ফল অনেকটা শিমের মত ৪ থেকে ৬টা বীজ থাকে। আলকুশি বিভিন্ন ধরণের ওষধি গুণাগুণ রয়েছে । সুতরাং এখন দেখে নেওয়া যাক এই আলকুশির উপকারিতা গুলো কি।

আলকুশি বীজের উপকারিতা
বুকে কফ হলে: অনেকের এই সমস্যা দেখা যায়, তখন এই আলকুশীর মূল পানি দিয়ে প্র্রথমে সিদ্ধ করে নিতে হবে । তারপর সকাল বিকেল নিয়মিত খেলে বুকে কফ জমায় ভালো হয়ে যাবে।

রক্তপিত্ত: অনেকের রক্তপিত্ত হয়ে থাকে,আর এই রক্তপিত্ত হলে ২০ গ্রাম আলকুশীর বীজ আগের রাতে ভিজিয়ে রেখে দিতে হবে। এর পরের দিন ভিজিয়ে রাখা বীজ খোসা ছাড়িয়ে একটু থেতো করে পাচ থেকে ছয় গ্রাম পানিতে সিদ্ধ করে আনুমানিক তিন কাপ করে নিতে হবে। এরপর পানি মিশিয়ে নিতে হবে পানি মিশানো হয়ে গেলে, সারাদিন তিন থেকে চার বার খেতে হবে। এই নিয়মে খেলে তাহলে রক্তপাত দ্রুত বন্ধ হয়ে যাবে।

পেটের সমস্যায়: যদি আপনার পেটের সমস্যা দেখা দেয়, তাহলে আপনি প্রথমে আলকুশির বীজ চূর্ণ করে পানি সহ সেবন করবেন। সেবন করলে পেট ঠান্ড হয়ে যাবে। এছাড়াও বায়ু কমবে এবং পেটের সবরকম সমস্যা দূর হবে ।

ভগ্নধ্বজে: প্রায় এই রোগটি হয়ে থাকে। তবে এই সমস্যা থেকে রেহাই পেতে আলকুশি বীজকে রাতে পানিতে ভিজিয়ে রেখে সকালে খোস ছাড়িয়ে বীজগুলো কে সমান পরিমাণ দুধে পানিতে মিশিয়ে সিদ্ধ করে। তারপর এই বীজ শিলে পিষে তাকে ঘিয়ে ভেজে চিনি মিশিয়ে হালুয়ার মতো করে রাখতে হবে। তারপর এটি নিয়মিতখেলে এই রোগ থেকে রেহাই পাওয়া যাবে।

ইতিপূর্বে আমরা জেনেছি যে এই আলকুশি একটি ওষধি গাছ। এই ওষধি গাছের তবে রয়েছে অনেক গুনাগুণ। এই গাছ ব্যবহার করে বিভিন্ন অসুখ থেকে রেহাই পাওয়ার সুয়োগ রয়েছে। সুতরাং দেখে নিন আলকুশি বীজ এর উপকারিতা:-

আলকুশি এর উপকারিতা
যদি কোন কাজ করার সময় পোকা মাকড়ের কামড়ে বা বিছের দংশন করলে, এই আলকুশীর বীজের গুড়া সেই কামরানো স্থানে লাগালে দ্রুত যন্ত্রণা কমে যায়।

এই আলকুশির শিকড়ের রস এক চামচ করে, লাগাতারে একমাস খেলে আমাশয় রোগ ভালো হয়ে যায়।
বিশেষ করে এই আলকুশির পাতার রস ফোঁড়ায় দিলে দ্রুত সেটি ফেটে যায়। এর পর সেটি দ্রুত ভালে হয়ে যায়।
এই আলকুশির বীজ চিনি ও দুধসহ সেদ্ধ করে নিয়মিত খেলে বাত রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এমনকি শারীরিক দুর্বলতাও দূর হয়।
এই আলকুশি খাওয়ার ফলে শুক্র বৃদ্ধি ও গাঢ় হয় এবং স্নায়বিক দুর্বলতা দূর করে।
এই আলকুশির শিকড়ের রস খাওয়ার ফলে সর্দি-কাশি ও জ্বর ভালো হয়।
এই আলকুশির শিকড়ের মানুষের মূত্রযন্ত্রের ও মূত্রবর্ধক রোগ নিরাময়ে বেশ কার্যকারি ভূমিকা পালন করে থাকে।
আলকুশির কাণ্ডের রস মানুষের চোখের রোগের ক্ষেত্রেও অনেক উপকারি ভূমিকা পালন করে।
এই আলকুশির শিকড়ের রস বিশষ করে পশুপাখির গায়ের ঘায়ে লাগালে ক্ষত দ্রুত ভালো হয়ে যায়।

সারাদেশে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে বিশ্বস্ততার সাথে ঔষধ ডেলিভারী দেওয়া হয়।

ঔষধ পেতে যোগাযোগ করুন :

হাকীম মিজানুর রহমান (ডিইউএমএস)

হাজীগঞ্জ, চাঁদপুর।
ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার
একটি বিশ্বস্ত অনলাইন স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান।

মুঠোফোন : (চিকিৎসক) 01742-057854

(সকাল দশটা থেকে বিকেল ৫টা)

ইমো/হোয়াটস অ্যাপ : (চিকিৎসক) 01762-240650

ই-মেইল : ibnsinahealthcare@gmail.com

সারাদেশে কুরিয়ার সার্ভিসে ঔষধ পাঠানো হয়।

শ্বেতীরোগ একজিমাযৌনরোগ, পাইলস (ফিস্টুলা) ও ডায়াবেটিসের চিকিৎসক।

আরো পড়ুন : শ্বেতী রোগের কারণ, লক্ষ্মণ ও চিকিৎসা

আরো পড়ুন : মেহ-প্রমেহ ও প্রস্রাবে ক্ষয় রোগের প্রতিকার

আরো পড়ুন : অর্শ গেজ পাইলস বা ফিস্টুলা রোগের চিকিৎসা

আরো পড়ুন : ডায়াবেটিস প্রতিকারে শক্তিশালী ভেষজ ঔষধ

আরো পড়ুন : যৌন রোগের শতভাগ কার্যকরী ঔষধ

আরো পড়ুন :  নারী-পুরুষের যৌন দুর্বলতা এবং চিকিৎসা

আরো পড়ুন : দীর্ঘস্থায়ী সহবাস করার উপায়

আরও পড়ুন: বীর্যমনি ফল বা মিরছিদানার উপকারিতা